উস্টকা ডায়েরী দ্বিতীয় পাতা

এখানে সন্ধে সাতটা। দিনের আলো মুছতে ঢের দেরি এখনও। আজ আকাশ হালকা মেঘলা, না হলে এইসময় এখানে রোদ্দুর ভেসে যায়। রাত নটা তেও আমাদের বিকেল পাঁচটার মতো সোনালী হালকা রোদ বাড়ির ছাদে লেগে থাকে। আমি এই বাগানে আগে আসিনি কখনো। আসতে না পারার কারণ, এদিকে একটা আলাদা দরজা আছে বাগানে যাবার জন্য। নিরাপত্তার কারণেই সম্ভবত প্রায় সবসময়ই এই দরজা বন্ধ থাকে। আজ দেখলাম দরজা খোলা। সেদিক তাকাতেই চোখে পড়ল সুন্দর সবুজ বাগানকে আলো করে ফুঁটে আছে বাহারি রঙিন ফুল। বেশীর ভাগই অবশ্য আমার নাম না জানা।

 

রাত্রে এখানে যেই বয়স্ক ভদ্রলোক, এই বাড়ী দেখাশোনা করেন তাঁকে দেখলাম বাগানের পাতা বেঞ্চে বসে,  তারই প্রায় সমবয়সী দুজনের সাথে গল্পে মোশগুল।

আমাকে দেখেই হাসি মুখে উনি বললেন.... শুভ সন্ধ্যা। অবশ্যই পোলিশ ভাষাতে।

প্রায় সপ্তাহ তিনেক হতে চলল, এই ভদ্রলোককে দেখছি…...ইনি ইংরেজি এক বর্ণও জানেন না। বলা বা বোঝা তো দূরের কথা। আমি তাও কাজ চালাবার মতো সামান্য কিছু হলেও পোলিশ শব্দ জেনেছি ইন্টারনেটের দৌলতে। তার চর্চাও করি কখনো সখনো এদের সাথে কথা বলতে হলে।কখনো ঠিক হয় আবার অনেকসময়ই হয়না।

এরা হাসে, বুজতে পারে আমি কি বলতে চাইছি। আসলে উচ্চারণগুলো করাই বেশ শক্ত।

একটা শব্দ যেমন ইংলিশ হরফের SZCZ দিয়ে শুরু। যত ইংরেজিতেই পান্ডিত্য থাক না কেন....SZCZ দিয়ে শুরু হওয়া কোনো শব্দের, পোলিশ উচ্চারণ কি হবে তা বোঝা বেশ শক্ত। আর ইংলিশ উচ্চারণ এই ক্ষেত্রে কোনো কাজে আসবে না। কারণ ইংলিশে এরকম কোনো শব্দও নেই, তাই উচ্চারণও কারো জানবার কথা নয়। কিছু কিছু শব্দ ইংলিশি ঢঙে উচ্চারণ করা গেলেও তা পুরোপুরি ভুল হবে। কারণ পোলিশ ভাষাতে তার উচ্চারণ সম্পূর্ণ আলাদা। SZCZ দিয়ে শুরু হওয়া পুর শব্দটা আসলে.....'szczęśliwi'. কিছু কী বোঝা যাচ্ছে, অর্থাৎ কি সম্ভব্য উচ্চারণ। এই শব্দের মানে হলো 'খুশী' বা Happy

যারা একটু মিচকে বদমাশ গোছের.. তারা বলবে, নিকুচি করেছে এর উচ্চারণ জেনে। আমি সুস্থ থাকতে চাই। অযথা জিভকে ব্যস্ত করে লাভ কি।

 

এর উচ্চারণ অনেকটা এই রকম....খুব হালকা প্রায় ফিস ফিসে গলায় 'শু' বলে 'চেইশলিভে' বলতে হবে। পুরো কথা বা শব্দটা 'শুচেইশলিভে'। আমার উদ্দেশ্য পোলিশ ভাষা নিয়ে আলোচনা করা না। আমি কোন হরিদাসপাল যে পোলিশ ভাষা বুঝে যাবো এই কদিনে।

 

সেই বয়স্ক ভদ্রলোক, আমাকে আগ্রহ নিয়ে উনি যাদের সাথে আড্ডা মারছিলেন তাদের দুজনের সাথে আলাপ করিয়ে দিয়ে বললেন 'ব্রাত,। ব্রাত।

 

'ব্রাত' মানে যে ব্রাদার পোলিশ এ.... এটা আমার জানাছিল। আমি বুঝতে পেরেছি বোঝাতে ইচ্ছা করেই বললাম.... 'ব্রাদার। ভদ্রলোক মুচকি হেসে আমায় বললেন.....'তাক'। অর্থাৎ হ্যা বা ইয়েস। কিন্তু উনি একটিও ইংরেজি শব্দ বলেননি। ইংলিশ কিছু বললেই, বলেন.... 'নিয়' অর্থাৎ না।

 

আমি ভেবেছিলাম বাকি দুজনের কেউ নিশ্চয়ই একটু-আধটু ইংরেজি জানবে। বা জানলেও জানতে পারে। অবাক কাণ্ড, এক বিন্দুও জানে না দুজনের কেউই।

আসলে আমার অবাক লাগলেও, এটা এদেশে কোনো আশ্চর্যজনক ঘটনা নয়।

 

এঁরা যে ইচ্ছা করে ইংলিশ বলছে না এমনও নয়, বাস্তবিকই ..মোটেই জানে না।

এখানে এবং আরো দু চারটে দেশে দেখেছি....মুষ্টিমেয় কিছু মানুষ আছে যারা ইংলিশ অল্প জানলেও ঘুণাক্ষরেও তা বলবে না। এটাকে আমি দোষ হিসেবে দেখি না মোটেই। আমাদের দেশ বা কলকাতা হলে, দুই বাঙালী পদবিধারী লোকও কথার ফাঁকে ফাঁকে ইংলিশ শব্দ গুঁজে দিয়ে মহা আত্মতৃপ্তি বোধ করে।

এইখানে একদমই তার উল্টো ছবি। এটা বুঝতে অসুবিধা হয় না, যে এরা নিজেদের ভাষাকে শ্রদ্ধা করে যথেষ্ট।

একজন ভাই বা ব্রাদার, আরেকজন যে ছিলেন তিনি এক মহিলা, এদের বোন বা 'শিওস্ত্রা'। তিনজনের মুখের মিলও আছে যথেষ্ট। 'সিস্টার' এর পোলিশ শব্দ আমার জানা থাকলেও ভুলে গিয়েছিলাম, আর সেটা আদৌ অস্বাভাবিক কিছু নয়।

এখানে এই কদিনে যা বুজলাম, এখানে.... ইংরেজি না জানলেও ,কেউ তোমাকে অপদস্থ করবে না। আবার জানলেও কেউ তোমায় আলাদা করে বাহবা বা পাত্তা দেবে না।

আমি এর মধ্যে একদিন ইচ্ছা করেই.... এখানে ইংলিশ খবর কাগজ খুজছিলাম। পাইনি কোথাওই। দু-তিন জায়গায় জিজ্ঞেস করে শুনতে হয়েছিল সেই ....'নিয়' শব্দটা। অর্থাৎ নেই।

 

এরা, মানে এই ভদ্রলোকের ভাই ও বোন, যে ইংলিশ একেবারেই বোঝে না এটা নিশ্চিত হলাম.... আমার লাইফ লাইন ব্যাবহার করে।

তুমি ইংলিশ জানো কী না....এই কথাটা পোলিশ ভাষাতে বলতে হবে। এটা জানা বা মুখস্ত থাকলে.... কেউ ইংলিশ জানলে, বা সে যদি ইংলিশে কথা বলতে রাজি থাকে, তবে কালবিলম্ব না করে প্রথম থেকেই ইংলিশে আলাপ শুরু করা যায়। 'চেউ মুভিশ পো অঙ্গলেশকু ' সেই জাদু মন্ত্র।

এটা কাউকে বললে....এর সম্ভব্য তিনটে উত্তর মেলে। বা মেলা সম্ভব। এক সে জানে। নয় সে জানে না। নয়তো বা অল্পস্বল্প জানে।

'তাক' বা 'নিয়' হ্যা বা না এর ক্ষেত্রে। আর অল্পস্বল্প জানলে....'তুরুখে'। অনেকটা হিন্দির 'থোড়া থোড়া' র মতো শোনায়।

আমাকে দুজনেই বললো....'নিয়'। আর তৃতীয়জন তো জানেই না।

 

তাও আকারে ইঙ্গিতে কথা হল। মানুষ ছাড়া আর কোন প্রাণীই বা কথা বলতে পারে ! বেঁচে থাকার জন্য আদৌ কি কোনো ভাষার প্রয়োজন আছে। ভাষা না জানা থাকলেও..... কে, কি বলতে চায়' সেটা সবাই বোঝে। বোঝানোও সম্ভবও।

 

এই আলাপচারিতার মাঝেই, আজও একটা অদ্ভুত দৃশ্য দেখলাম। না আইসক্রিম খাওয়া নয়, সে তো দেখেইছি। সেটা এখন পুরোনো। আজ দেখলাম সিগারেট খাওয়া।

কাউকে সিগারেট খেতে দেখার মধ্যে..বিস্ময়ের কিছু নেই। যদিও সমগ্ৰ পৃথিবী জুরেই ধূমপাই-এর সংখ্যা আগের চেয়ে অনেক হ্রাস পেয়েছে। আমাদের দেশে দুই ভাই একসাথে সিগারেট খায়। মেয়েরাও আকছাড় সিগারেট খাচ্ছে ইদানিং। পার্কস্ট্রিট চত্বরে হাঁটলে তো বটেই এমন কি শহরের নামি শপিংমল গুলির অনাচেকানাচে একটু চোখ খোলা রাখলেই তার প্রমান মেলে। এর বাইরেও শহরের আরো বেশ কিছু জায়গায়, একই চিত্র মেলে। দুই বোন পাশাপাশি হাটতে হাটতে সিগারেটও খেতে পারে। দাদার খাওয়া সিগারেটের শেষ টানটা ভাই দিলো এমন তো হয়েই থাকে।

 

আমি দেখলাম বোনের খাওয়া সিগারেট এর শেষ কুড়ি শতাংশ দাদা খাচ্ছে। যেই বয়স্ক ভদ্রলোক, এখানে রাত্রে দেখাশুনা করেন তিনি। প্রথমটায় ভাবলাম উনি হয়তো ওই সিগারেট দিয়ে নিজে কোনো সিগারেট ধরাবেন। কিন্তু না, সরাসরি টান সিগারেটে।

 

এই তিন জন মানুষের সাথে, আমি যখন গিয়ে পড়লাম, আলাপ করলাম, শুরু থেকেই দেখছিলাম এই ভদ্রমহিলা বা এদের বোন সিগারেট খাচ্ছিল। বাকিদের হাতে সিগারেট ছিল না

 

আর একটা কথা আমার মনে এলো.... এদের মধ্যে দৈবা, কেউ যদি সত্যিই কিছুটা হলেও কাজ চালাবার মতো ইংলিশ জানত... সে আমাদের দেশ হলে নিজেকে কত কেউকেটা ভাবতো। আমি ওদের থেকে চলে আসার পর....যিনি ইংরেজি জানা, সেই ব্রাদারটি বাকি দের বলত.....তোরা সেই একই রয়ে গেলি....তোদের দ্বারা কিছু হবার নয়।

 

 

কৌশিক গুপ্ত

২২ জুলাই, ২০১৯

উস্টকা

Ustka Diary Page 3

It is evening now, around seven o'clock. But the daylight is still there. The sky is a bit cloudy today, otherwise the sunrays would make you feel it is still noon. Even at 9'o clock you can see the glow of the fading sun. Today, for the first time I have come to this garden. On other days the door to the garden remains closed. Perhaps for certain security reasons. It is a beautiful garden full of colourful flowers on the bright green bed of grass. I did not know the names of most of the flowers.

 

 

In the evening I saw the aged person who looks after me here having talks with another two persons almost of his age in the garden. He greeted me saying 'Good Evening', of course in Polish!

I know this man for almost three weeks now. He does not know English. Rather I have learnt a few Polish words, thanks to internet! With my poor Polish, I still try to communicate with them. Sometimes my knowledge clicks, sometimes not. Often they laugh with my wrong Polish. But they can understand me. The pronunciatiion is the most difficult part. Words beginning with SZCZ is almost impossible for me to pronounce with my oriental tongue. Your working knowledge of English does not work here. “Szczęśliwy”, (sounds ‘shuche-ish-leeve’) means 'happy'!!

 

 

Anyway, the aged person introduces me to his companions as 'brat', meaning 'brother'. To my surprise I found even his companions, too, did not know English! It is not that these people are wilfully not using English, they really do not know English! I come from a country, where two persons, seemingly educated, who could have communicated with each other in vernacular, show off their knowledge in English in their communication. In Poland people are really proud of their mother tongue. Even English newspapers are rare here.

 

Come back to my Today's' story. What surprised me today was that companions of my aged caretaker were actually his siblings, his brother and sister. It was really pleasant to see the brothers took the butt end of cigarette from their sister without hesitation. I am not advocating smoking here. What I want to say the cordial relationship, the affection of these Polish elderly siblings overwhelmed me.

 

 

 

Author: Kaushik Gupta (Originally written in Bengali)

English Translation: Ms Shrabani Mitra

  • Facebook
  • Vkontakte
  • instagram
  • Twitter
  • Tumblr